অনলাইনে টাকা ইনকাম কিভাবে করবেন । How To Earn Money Online –
বন্ধুরা সবাই আশা করি ভালো আছেন । আজকে আমি আপনাদের সাথে আলোচনা করবো কিভাবে আমরা অনলাইন থেকে টাকা ইনকাম করতে পারি ? অনলাইনে টাকা ইনকামের অনেক পথ রয়েছে শুধু দরকার দক্ষতা ও ধৈর্য । শুধু মাত্র দক্ষতার অভাবে আমরা অনলাইনে টাকা ইনকাম করতে পারি না অনেকের আবার দক্ষতা থাকার পরও ধৈর্যের অভাবে কাজ করা হয়ে উঠে না । অনেকে আবার অনলাইনে কিভাবে কোথায় কাজ করবেন বুঝে উঠতে পারেন না । অনেকে ভুল জায়গায় সময় ও শ্রম নষ্ট করে থাকেন । অনলাইনে যেমন ভালো কাজের প্ল্যাটফর্ম আছে তেমনি অনেক ভুয়া প্ল্যাটফর্ম ও আছে । তাই বুঝে শুনে কাজ করলে সেখান থেকে ভালো অর্থ ইনকাম করা সম্ভব । আজকে আমি সেই রকম কিছু অনলাইন টাকা ইনকামের প্ল্যাটফর্ম সম্পর্কে আলোচনা করবো যেগুলো আমি ব্যক্তিগত ভাবে কাজে করে টাকা ইনকাম করেছি এবং ১০০% নিরাপদ । আশা করি আপনারা আমার আলোচনা থেকে উপকৃত হবেন । তাহলে আর দেরি না করে শুরু করি আজকের আলোচনা –
ভিডিও সহ দেখতে নিচের লিংকে ক্লিক করুন -

Youtube – ইউটিউব

বর্তমানে অনলাইনে টাকা ইনকামের সবচেয়ে বড় মাধ্যম হল ইউটিউব । এখানে একজন ভিডিও ক্রিয়েটর তার নিজস্ব ভিডিও আপলোড করে এবং সেটা যদি গুগল এডসেন্স এর যে পলিসি আছে তা ফুলফিল করতে পারে তাহলে তার ঐ ভিডিওতে এড আসবে এবং ক্রিয়েটর সেখান থেকে টাকা ইনকাম করতে পারবে । তাহলে আসুন আমরা ইউটিউব সম্পর্কে কিছু তথ্য জেনে নেই এবং ইউটিউবের এড পলিসি সম্পর্কেও জানার চেষ্টা করি । চাঁদ হারলে, স্তিভ চেন ও জাওয়াদ করিম ২০০৫ সালে ইউটিউব প্রতিষ্ঠা করেন । এর কাজ হল অনলাইন ভিডিও শেয়ারিং করা । পরবর্তীতে ২০০৬ সালে গুগল ইউটিউবকে কিনে নিয়ে তাদের একটি সাবসিডিয়ারী প্রতিষ্ঠানে পরিনত করে । ইউটিউব পৃথিবীর দ্বিতীয় বেশি পরিমানে ভিজিট করা ওয়েবসাইট । ইউটিউবে এখন চার ধরণের প্রোডাক্ট সার্ভিস চালু আছে যেমনঃ ইউটিউব প্রিমিয়াম, ইউটিউব মিউজিক, ইউটিউব টিভি ও ইউটিউব কিডস । বর্তমানে ইউটিউব তার ব্যবহারকারিদের যেসব সুবিধা প্রদান করে থাকে তা হল ভিডিও আপলোড করা, ভিউ করা, ভিডিও শেয়ার করা, রেট দেওয়া, কমেন্ট করা, রিপোর্ট করা এবং প্লে লিস্ট এড করা । এখন প্রশ্ন জাগতে পারে ইউটিউব থেকে কিভাবে টাকা ইনকাম করা যায় । ইউটিউবে টাকা ইনকাম করা পদ্ধতি নিচে সংক্ষিপ্ত আকারে আলোচনা করার চেষ্টা করলাম –
 প্রথমে আপনার একটি ইমেল আইডি খুলতে হবে
 উক্ত ইমেল আইডি ব্যবহার করে ইউটিউব এ একটি চ্যানেল ক্রিয়েট করতে হবে ।
 তারপর সেই চ্যানেলে আপনার নিজস্ব কাজের ভিডিও আপলোড করতে হবে । এখানে অন্যের কোন কাজ চুরি করে আপনার বলে চালিয়ে দিতে পারবেন না । যদি এমন করে তাহলে আপনার চ্যানেলটি তারা বাতিল করে দিবে ।
 এরপর আপনার আপলোড কৃত ভিডিও যদি দর্শক দ্বারা অধিক জনপ্রিয় হয় এবং ইউটিউব পলিসি পুরন করতে সক্ষম হয় তাহলে আপনার আপলোড কৃত ভিডিও তে এড আসা শুরু করবে এবং উক্ত এড যে পরিমাণ দর্শক দেখবে সেই রকম আপনি টাকা ইনকাম করতে পারবেন ।
 বর্তমান ইউটিউব পলিসি অনুযায়ী আপনার চ্যানেলের সাবস্ক্রাইব সংখ্যা ১২ মাসে কমপক্ষে ১০০০ জন হতে হবে এবং আপানার চ্যানেলের আপলোড কৃত ভিডিও ৪০০০ ঘণ্টা দেখতে হবে । তাহলে আপনার চ্যনেল রিভিউ এর জন্য মনোনীত হবে । রিভিউ তে পাস করতে এড আসা শুরু করবে ।
ভিডিও সহ দেখতে নিচের লিংকে ক্লিক করুন -

Google Adsense – গুগল এডসেন্স

বর্তমানে পৃথিবীতে সবচেয়ে জনপ্রিয় এবং সর্বাধিক দেখা ওয়েবসাইট হল গুগল । এই গুগলের একটি সার্ভিস হল গুগল এডসেন্স । গুগল এডসেন্স সার্ভিসের একটি ব্যবহার আমরা ইউটিউবে আলোচনা করেছি এখন আমরা ওয়েবসাইট ভিত্তিক গুগল এডসেন্স নিয়ে আলোচনা করবো । ওয়েবসাইট ভিত্তিক গুগল এডসেন্স এর জন্য আপানাকে যে যে বিষয় গুলো লক্ষ্য রাখতে হবে তার একটি সংক্ষিপ্ত বর্ণনা নিচে আলোচনা করলাম –
 প্রথমে আপনার ওয়েবসাইটের একটি নাম ঠিক করতে হবে ।
 এরপর ঐ নামের একটা ডোমেইন কিনতে হবে ।
 ডোমেইন কেনা হয়ে গেলে হোস্তিং কিনতে হবে । ইহা মূলত আপনার ওয়েবসাইটের জন্য কি পরিমাণ মেমোরি দরকার তার উপর ভিত্তি করে কিনতে হবে ।
 ডোমেইন হোস্তিং হয়ে গেলে আপনার ওয়েবসাইটটি এড করতে হবে ।
 এরপর প্রয়োজনীয় পরিমাণ তথ্য ও উপাত্ত ওয়েবসাইটে এড করতে হবে । লক্ষ্য রাখতে হবে যেন অন্যের কোন লেখা চুরি করে ওয়েবসাইটে আপলোড করা না হয় । তাহলে রিভিউয়ের সময় আপনার এপ্লিকেশন বাতিল হয়ে যাবে ।
 নিয়মিত তথ্য হালনাগাদ করতে হবে ।
 ব্লগ সম্পর্কিত ওয়েবসাইট হলে কমপক্ষে ২৫ টি ব্লগ পোস্ট থাকতে হবে ।
 ওয়েবসাইটটিতে অবশ্যই এসএসএল সার্টিফিকেট থাকতে হবে ।
 কন্টাক্ট পেজ থাকতে হবে ।
 প্রাইভেসি পলিসি থাকতে হবে ।
 কোন ধরণের স্প্যাম পোস্ট করা যাবে না ।
 আপনার ওয়েবসাইটটিকে গুগল ওয়েবমাষ্টার টুল ব্যবহার করে গুগলে অ্যাড করতে হবে ।
 তারপর সাইটম্যাপে আপনার ওয়েবসাইট টি এড করতে হবে ।
 উপরক্ত শর্ত পুরুন করে গুগল এডসেন্স এর জন্য আপনাকে এপ্লাই করতে হবে ।
 আপনার ওয়েবসাইটটি রিভিউ এর পর যদি এপ্রুভ হয় তাহলে ইমেলের মাধ্যমে আপনাকে একটি কোড পাঠাবে ।
 সেই কোড আপনার ওয়েবসাইটে ব্যবহার করে আপনার ওয়েবসাইটে এড শো করাতে পারবেন ।
 উক্ত এড যখন কোন ব্যবহারকারী ক্লিক করে দেখবে তখন আপনি তার বিনিময়ে টাকা পাবেন ।
Visit My Website – learnictbd
ভিডিও সহ দেখতে নিচের লিংকে ক্লিক করুন -

Facebook Videos – ফেসবুক ভিডিও

বর্তমানে ফেসবুক থেকেও টাকা ইনকাম করা সম্ভব হচ্ছে । আমরা ফেসবুক কে শুধু সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম হিসেবেই জেনে আসছি এবং ব্যবহার করে আসছি । কিন্তু ফেসবুক ইদানিং সময়ে একটি ফিচার এড করেছে যার সাহায্যে ফেসবুক থেকেও টাকা ইনকাম সহজতর হয়েছে । তাহলে আর দেরি না করে ফেসবুকে কিভাবে টাকা ইনকাম করবেন তার কিছু নিয়ম কানুন সম্পর্কে জেনে নেই ।
 প্রথম শর্ত হল আপনার একটি ফেসবুক আইডি থাকতে হবে । কোন ধরণের ফেক আইডি গ্রহণযোগ্য হবে না ।
 ফেসবুক আইডি দিয়ে একটি ফেসবুক পেজ খুলতে হবে ।
 আপনার নিজস্ব আইডিয়া দিয়ে ক্রিয়েটিভ কিছু ভিডিও তৈরি করে তা ঐ পেজ এ আপলোড করতে হবে । আপনার ফেসবুক আইডির প্রোফাইলে ভিডিও এড করলে হবে না । শুধুমাত্র পেজ এ এড কৃত ভিডিও গ্রহণযোগ্য বলে বিবেচিত হবে ।
 ভিডিও কোয়ালিটি মিনিমাম ৭২০ পিক্সেলের হতে হবে ।
 ভিডিওতে আপানার ভয়েজ বা ফ্রি মিউজিক ব্যবহার করতে হবে ।
 কোন একটি ভিডিও ৬০ দিনের মধ্যে ৩০০০০ হাজার বার দেখতে হবে যার ডিউরেশন ১ মিনিটের বেশি হতে হবে ।
 ফেসবুক ভিডিওর পরিধি কমপক্ষে ৬০-৯০ সেকেন্ড হতে হবে ।
 আপনার পেজের ফলোয়ার সংখ্যা ১০০০০ হতে হবে ।
 ফেসবুক এড সাপোর্ট করে এমন ভাষায় ভিডিও বানাতে হবে ।
 ফেসবুক এড সাপোর্ট করে এমন দেশে আপনার বাসা হতে হবে ।
 কোন ধরণের বাজে কনটেন্ট পাব্লিশ করা যাবে না ।
 সবকিছু ঠিক থাকলে এড এর জন্য আপ্লাই করে রাখতে হবে ।
 রিভিউয়ের পর এপ্রুভ হলে আপনি টাকা ইনকাম করতে পারবেন ।
Visit on Facebook
ভিডিও সহ দেখতে নিচের লিংকে ক্লিক করুন -

Upwork – আপওয়ার্ক

বর্তমান বিশ্বের ফ্রিলান্সারদের সবচেয়ে বড় কাজ করার প্লাটফর্মের নাম হচ্ছে আপওয়ার্ক । প্রায় ৮০ লক্ষের অধিক ফ্রিলান্সার ও ৫০ লক্ষের অধিক কাজদাতা প্রতিষ্ঠান ও ব্যাক্তি আপওয়ার্ক এর সাথে জড়িত । আপওয়ার্ক হচ্ছে ইলান্স ও ওডেস্ক এর সমন্বয়ে গঠিত একটি প্ল্যাটফর্ম যা ২০১৫ সালে একীভূত করা হয় । এর আগে ইলান্স ও ওডেস্ক দুইটি প্ল্যাটফর্ম আলাদা আলাদা ভাবে কাজ করে আসছিল । আপওয়ার্ক এর প্রধান কার্যালয় ক্যালিফোর্নিয়া, আমেরিকায় অবস্থিত । প্রতি বছর প্রায় ১ কোটি ডলারের কাজ হয় এই প্লাটফর্মে । ১৯৯৮ সালে বেরুদ সেট ও স্রিনি আনুমুলু ইলান্স নামে একটি ছোট আকারে মার্কেটপ্লেস তৈরি করেন যা মূলত পৃথিবীর বিভিন্ন প্রান্ত থেকে ফ্রিলান্সারদের কাজ করার সুযোগ তৈরি করে । ২০০৩ সালে ওদিসিস সাতালাস ও স্ত্রাতিস কারামানলাকিস ওডেস্ক একটি কোম্পানি প্রতিষ্ঠা করেন যেখানে রিমোট জায়গায় থেকে কাজ করার সুবিধা প্রদান করে । ২০১৫ সালের সেপ্টেম্বর মাসে এই দুই কোম্পানি একসাথে আপওয়ার্ক নামে কাজ করে আসছে । আপওয়ার্ক কিভাবে কাজ করে
আপওয়ার্কে একজন কাজদাতা ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান তার প্রয়োজনীয় কাজের বর্ণনাসহ এই প্লাটফর্মে পোস্ট করেন । তারপর কাজ করতে ইচ্ছুক ফ্রিলান্সারগন ঐ কাজের বর্ণনার উপর ভিত্তি করে কাজের জন্য নির্দিষ্ট পরিমাণ অর্থ ও সময় উল্লেখ করে বিড করেন । কাজদাতা উক্ত বিডকারী ফ্রিলান্সারদের মধ্যে থেকে তার পছন্দমত ফ্রিলান্সারকে ইন্টারভিউ জন্য মেসেজ প্রদান করেন এবং তার কাজ করার মত যোগ্য মনে করলে আপওয়ার্ক মাধ্যমে তাকে হাইয়ার করেন । এই প্রক্রিয়াটি আপওয়ার্ক এর নিয়ম কানুন মেনে সম্পন্ন হয় এবং এর জন্য আপওয়ার্ক ৩% টাকা কেটে নেয় । আপওয়ার্ক এ কাজ করার জন্য কাজ করতে আগ্রহী ও কাজদাতা উভয়কে আপওয়ার্ক রেজিস্ট্রেশন করতে হয় । কাজের মানের উপর ভিত্তি করে কাজদাতাগন ফ্রিলান্সারদের রেটিং দিয়ে থাকেন এবং কাজ সমাপ্তির ১৪ দিনের মধ্যে ফ্রিলান্সারের ওয়ালেট টাকা জমা হয়ে যায় । আপওয়ার্ক এর মাধ্যমে প্রায় সব ধরণের কাজই করা যায় , ডাটা এন্ট্রি থেকে শুরু করে প্রোগ্রামিং, সফটওয়্যার, ডিজাইন, রাইটিং , হার্ডওয়্যার সমস্যার সমাধান । আপনি যদি একজন স্কিল পারসন হয়ে থাকেন তাহলে আপনিও শুরু করতে পারেন ।
ভিডিও সহ দেখতে নিচের লিংকে ক্লিক করুন -

Freelancer –ফ্রিলান্সার

ফ্রিলান্সার অস্ট্রেলিয়া ভিত্তিক একটি ফ্রিলান্স মার্কেটপ্লেস ওয়েবসাইট যা ২০০৯ সালে প্রতিষ্ঠিত হয় । এখানে কাজদাতা তার কাজের বর্ণনাসহ কাজ পোস্ট করেন আর ফ্রিলান্সার যারা কাজ করবেন তারা উক্ত কাজের জন্য তাদের কাজের মজুরি এবং কতদিনে কাজটি সম্পাদন করতে পারবেন তা উল্লেখ পূর্বক বিড করে থাকে । উক্ত বিড কৃত ফ্রিলান্সার থেকে বায়ার তার পছন্দ মত ফ্রিলান্সারকে কাজের জন্য মনোনীত করেন এবং কাজ প্রদান করে থাকেন । উক্ত কাজ সম্পাদন শেষে বায়ার রিভিউ করে যদি মনে করেন তার কাজ পছন্দ মত হয়েছে তাহলে টাকা প্রদান করেন । উক্ত কাজ সম্পাদনের জন্য ফ্রিলান্সার ১০% হারে ফি নিয়ে থাকে । ফ্রিলান্সার এ মতামুটি সব ধরণের কাজ ই করা যায় যেমনঃ ডাটা এন্ট্রি থেকে শুরু করে গ্রাফিক্স ডিজাইন, সফটওয়্যার, হার্ডওয়্যার, ওয়েব ডিজাইন, ওয়েব ডেভেলপমেন্ট , কনটেন্ট রাইটিং সহ প্রায় সব কাজ ই হয় । এই মার্কেট প্লেসে ভারতের সবচেয়ে বেশি ফ্রিলান্সার কাজ করেন তারপর আছে যুক্তরাষ্ট্র, পাকিস্থান, ফিলিপিন্স, শ্রীলঙ্কা, যুক্তরাজ্য, বাংলাদেশ সহ পৃথিবীর প্রায় ২৪৭ টি দেশের ফ্রিলান্সার । অস্ট্রেলিয়া ছাড়াও ফিলিপিন্স, যুক্তরাজ্য, কানাডা , আর্জেন্টিনা, ও ইন্দোনেশিয়ায় এর কার্যালয় রয়েছে । ফ্রিলান্সার এ কাজ করার জন্য আপনাকে যা যা করতে হবে –
 প্রথমে আপনাকে একটি একাউনট খুলতে হবে ।
 তারপর আপনি যে ধরণের কাজে পারদর্শী তার একটি লিস্ট তৈরি করতে হবে ।
 আপনি প্রতি ঘণ্টা কজের জন্য কত টাকা করে নিবেন তার উল্লেখ করতে হবে ।
 ভালো মানের প্রোফাইল ছবি দিতে হবে ।
 পূর্বের কোন কাজের ছবি সহ বর্ণনা দিতে পারলে কাজ পাওয়া অনেক সহজ হবে ।
 ফ্রিলান্সারে বিভিন্ন ধরণের পরীক্ষার ব্যবস্থা ঐ পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করে সার্টিফিকেট অর্জন করতে পারলে দ্রুত কাজ পাওয়া যায় । এর জন্য আপনাকে ৫ ডলার পরীক্ষার ফি প্রদান করতে হবে ।
 ফ্রিলান্সার থেকে কাজ পেলে তা সততার সাথে করবেন অসৎ উপায় অবলম্বন করলে আপনাকে ব্যানড করে দিবে ।
 পেমেন্ট মেথড ভেরিফাইয়েড ছাড়া কোন বায়ারের কাজে বিড করা থেকে বিরত থাকুন ।
হ্যাপি ফ্রিলান্সিং ।।
ভিডিও সহ দেখতে নিচের লিংকে ক্লিক করুন -

Wordupjob–

এখন আমি আলোচনা করবো একটি মাইক্রো জব ওয়েবসাইট নিয়ে যেখানে আপনার কোন ধরণের কাজের অভিজ্ঞতা ছাড়াই অনলাইনে টাকা ইনকাম করতে পারবেন। এই ওয়েবসাইটে অনেক ছোট ছোট কাজ দেয়া হয় যেমনঃ ফেসবুক লাইক, শেয়ার, কমেন্ট করেও আপনি টাকা ইনকাম করতে পারবেন। আবার ইউটিউবে সাবস্ক্রাইব করে, ভিডিও দেখে, কমেন্ট করেও টাকা ইনকাম করা যায় । আপনারা আগ্রহী হলে নিচের লিঙ্কে ক্লিক করে রেজিস্ট্রেশন করুন এবং কাজ করে অনলাইনে টাকা ইনকাম করুন ।
Registration Link
এখন জেনে নিন কিভাবে কাজ শুরু করবেন –
 উপরের লিংকে ক্লিক করুন
 তারপর আপনার ইমেল এড্রেস ও পাসওয়ার্ড দিয়ে রেজিস্ট্রেশন করুন ।
 আপনার জাতীয় পরিচয় পত্র, ছবি দিয়ে আইডি ভেরিফাই করে নিন ।
 আইডি ভেরিফাই হলে ফাইনড জব অপশন থেকে পছন্দ মত কাজ করুন ।
 ১ ডলার পরিমাণ অর্থ জমা হলে বিকাশ ও নগদের মাধ্যমে টাকা উত্তোলন করুন ।
ভিডিও সহ দেখতে নিচের লিংকে ক্লিক করুন -

Swagbucks –

প্রতিদিন সার্ভে করে ও প্রশ্নের উত্তর দিয়ে অনলাইনে টাকা ইনকামের একটি বিশ্বস্ত মাধ্যম এটি । এখান থেকে প্রতিদিন আপনি প্রশ্নের উত্তর দিয়ে টাকা ইনকাম করতে পারবেন । এখান থেকে টাকা ইনকামের জন্য আপনাকে যা করতে হবে –
Registration Link
 উপরের লিংকে ক্লিক করুন ।
 তারপর ইমেইল আইডি ও পাসওয়ার্ড দিয়ে রেজিস্ট্রেশন করুন ।
 তারপর গোল্ড সার্ভে তে ক্লিক করুন ।
 এখানে মাল্টিপল চয়েস প্রশ্ন থাকবে , পছন্দের উত্তর সিলেক্ট করে নেক্সট এ ক্লিক করুন ।
 ডেইলি পোলের উত্তর দিয়ে ও টাকা ইনকাম করা যায় । প্রতিদিন একটি প্রশ্নের উত্তর দিয়ে টাকা ইনকাম করুন ।
 এখানে গেম খেলেও টাকা ইনকাম করা যায় । গেম অপশন থেকে আপনার পছন্দের গেম সিলেক্ট করে খেলে জিতুন আর টাকা ইনকাম করুন ।
 বাংলাদেশ ছাড়া বাইরের দেশে থেকে আপনি কেনাকাটা করেও টাকা ইনকাম করতে পারবেন ।
ভিডিও সহ দেখতে নিচের লিংকে ক্লিক করুন -
প্রিয় শিক্ষার্থীবৃন্দ, আজকের এই আলোচনা থেকে আপনার যদি কোন ধরণের উপক্রিত হোক তাহলে আমার লেখা সার্থক হবে । আমার ভিডিও চ্যানেলে আপনার আরও ভালভাবে শিখতে পারবেন বলে আশা রাখি । টাই দেরি না করে চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন আর আপনার বন্ধুদের ও জানিয়ে দিন । ধন্যবাদ