Robot

Robot

Robot and Robotics

প্রিয় বন্ধুরা ,
আজকে আমি নতুন একটি বিষয় নিয়ে আলোচনা করব, আশা করি আপনাদের ভালো লাগবে ।। আমার আজকের আলোচনার বিষয় হল রোবট বা রোবটিক্স । বর্তমান বিশ্বের এক অভাবনীয় আবিস্কার এই রোবট । এই রোবট দিয়ে এমন অনেক কাজ করা সম্ভব হচ্ছে যা মানুষের পক্ষে করা সম্ভব ছিল না । অদূর ভবিষ্যতে এই আবিষ্কার মানুষের জীবনকে অনেক সহজ করে দিবে । আজকে আমরা এই আলোচনার মাধ্যমে জানার চেষ্টা করবো রোবটের আবিষ্কার, গঠন, কার্যপ্রণালী এবং রোবটের ভবিষ্যৎ । তাহলে দেরি না করে আমরা আলোচনা শুরু করি ।

রোবট কি বা রোবট কাকে বলে ?

রোবটিক্স হল প্রযুক্তির একটি শাখা আর রোবট হল এক ধরণের মেশিন যা কম্পিউটার প্রোগ্রামের সাহায্যে পরিচালিত হয় । এটা আধা যান্ত্রিক বা পুরোপুরি যান্ত্রিক হতে পারে । কিন্তু বর্তমানে অনেক রোবট আবিষ্কৃত হয়েছে যা কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা ব্যবহার করে নিজে নিজেই সিদ্ধান্ত নিতে পারে ।

রোবটের গঠন

একটি রোবট গঠন করতে প্রধানত তিনটি অংশের প্রয়োজন হয় ।

  1. সেন্সর এবং আকিউয়েটর (সেন্সর এবং আকিউয়েটর গুলির সাহায্যে দৈহিক গঠন ও অন্যান্য অংশের সাথে যোগাযোগ করে )
  2. কম্পিউটার প্রোগ্রাম ( কম্পিউটার প্রোগ্রামের মাধ্যমে তার কাজের পরিধি এবং কাজের ধরন ঠিক করা হয় )
  3. সম্পূর্ণ ও আংশিক সিদ্ধান্ত গ্রহণের ক্ষমতা (কম্পিউটার প্রোগ্রামের সাহায্যে একা একা সম্পূর্ণ বা আংশিক সিদ্ধান্ত গ্রহণ করার ক্ষমতা প্রদান করা হয় )

রোবটের ইতিহাস

আধুনিক রোবট সম্পর্কিত প্রথম শব্দ রাবোটা ব্যবহার করেন চেক প্রজাতন্ত্রের নাট্যকার ক্যারেল চাপেক তার আর ইউ আর নাটকে ১৯২০ সালে । এখানে রাবটা শব্দটি ব্যবহার করা হয়েছিলো জোর করে কাজ করানোকে । এই নাটকে রোবট কে দেখানো হয়েছিলো এমন এক হৃদয়হীন মানুষ হিসেবে যেখানে কারখানার মালিকের দ্বারা শোষিত হয়েছিলো যতক্ষণ না তারা বিদ্রোহ করে এবং মানবতাকে শেষ করে দেয় । কিন্তু তারা মেরি শেলির ( ফ্র্যাঙ্কেনস্টাইন ১৮১৮ ) এর মত দৈত্যের মত নাকি যান্ত্রিক তার কোন উল্লেখ পাওয়া যায় না ।
রোবটিক্স শব্দটি প্রথম সবার সামনে আসে ১৯৪২ সালে আইসাক আসিমভের বিজ্ঞান কল্পকাহিনী রানারাউন্ডে । তারপরের গল্পগুলোতে তিনি একটি মানদণ্ড তৈরি করতে পেরেছিলেন যেখানে রোবট সম্পর্কিত প্রযুক্তিক ও সামাজিক বাঁধাগুলো দূর করা সম্ভব হয়েছিলো । এই গল্পে আসিমভ তিনটি রোবট সম্পর্কিত আইনের কথা বলছেন । আইন তিনটি হল –

  1. রোবট মানুষের কোন ক্ষতি করতে পারবে না । এমন রোবট তৈরি করা যাবে না যা মানুষের ক্ষতি করে ।
  2. রোবট মানুষের কথামত কাজ করবে । কিন্তু প্রথম আইন ভঙ্গ করবে না ।
  3. প্রথম ও দ্বিতীয় আইন মেনে রোবট নিজেকে রক্ষা করতে পারবে ।

এই আইনগুলোকে পরবর্তীতে রোবট তৈরি ও উন্নয়নে ব্যবহার করা হয়েছে ।
১৯৫৪ সালে আমেরিকান ইঞ্জিনিয়ার জর্জ ডেভেল ইউনিমেট নামে প্রথম কারখানার কাজ করার মত রোবট তৈরি করেন । ইহা ছিল প্রোগ্রাম ইউনিমেত করা, ইলেকট্রনিক নিয়ন্ত্রিত উচ্চ ক্ষমতা সম্পন্ন হাতল বিশিষ্ট রোবট যা বৃত্তের মধ্যে আবর্তিত বস্তুকে ধরতে পারতো । ১৯৫৬ সালে আমেরিকান ইঞ্জিনিয়ার জোসেফ ইঙ্গেলবারগ ইউনিমেশন ইঙ্ক নামের কোম্পানি গঠন করেন এবং এই রোবটের উন্নয়ন করেন । ১৯৫৯ সালে জেনারেল মোটর কোম্পানি এই ইউনিমেট রোবটের প্রটোটাইপ তাদের নিউজার্সি কারখানায় ব্যবহার করে । ১৯৬১ সালে কনডেক কোম্পানি এই রোবট তাদের জিএম কারখানায় উৎপাদন লাইন নিয়ন্ত্রনে ব্যবহার করে ।
১৯৬০ থেকে ১৯৭০ সালের মধ্যে এমআইটি ও স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় গবেষণার মাধ্যমে সেন্সর সম্বলিত উচ্চমান সম্পন্ন হাতওয়ালা বিশিষ্ট কম্পিউটার কন্ট্রোল রোবট তৈরি করে যার নাম দেয়া হয় PUMA (Programmable Universal Machine for Assembly ) এটা ১৯৭৮ সাল পর্যন্ত ড্যাশ প্যানেল লাইট এসেম্বল করার কাজে ব্যবহার করে আসছিল । এছাড়াও এই রোবট মোবাইল এসেম্বলি করতে ব্যবহার হয়ে আসছে । AGVs (Automatic Guided Vehicles) নামের এক ধরণের রোবট ব্যবহার করা হত মুদি দোকান গুলোতে । ১৯৮০ সালে এই রোবট মাইক্রোপ্রসেসর ব্যবহার করে আরও উন্নত এবং জটিল কিছু কাজ করাতে সক্ষম হয় ।

রোবটের ধরন

কাজের ধরণের উপর ভিত্তি করে রোবটের আকার ও ধরন ভিন্ন ভিন্ন হয়ে থাকে । যেমন ০.২ মিলিমিটারের রোব-বি থেকে শুরু করে ২০০ মিটার এর ভিন্ডস্কিপ ।
সাধারণত আমরা পাঁচ ভাবে ভাগ করতে পারি –
১। Pre-Programmed Robots
Pre-Programmed Robots গুলো খুব সাধারণ এবং ছোট ধরণের কাজ করে থাকে । উদাহরণ স্বরূপ বলা যায় আগে থেকে প্রোগ্রাম করা রোবটগুলোর যান্ত্রিক হাত থাকে যেগুলকে এসেম্বলিং লাইনে ব্যবহার করা হয় । এদের দ্বারা একই কাজ অনেক সময় ধরে অনেক দ্রুত করান যায় । এগুলো সাধারণ মানুষের চেয়ে দ্রুত ও দক্ষতার সাথে কাজ সম্পাদন করতে পারে ।
২। Humanoid Robots
Humanoid Robots মানুষ সাদৃশ্য হয়ে থাকে । এদের কথাবার্তা এবং চালচলন মানুষের মত হয়ে থাকে । এগুলো মানুষের মত কাজ করে থাকে যেমন দৌড়ানো , লাফানো এবং কান্না করা । কোন কোন সময় অবিকল আমাদের মত দেখতে এবং আমাদের মত অঙ্গভঙ্গি করতে পারে । উদাহরণ দিতে গিয়ে আমরা বলতে পারি – সোফিয়া ও এটলাস এদের উৎকৃষ্ট উদাহরণ ।
৩। Autonomous Robots
Autonomous Robots এই রোবটগুলো মানুষের মত নিজে নিজে কাজ করতে পারে । যেকোন ফাকা পরিবেশে তারা নিজেদের কাজ নিজেরা করতে পারে কোনরূপ মানুষের সহযোগিতা ছাড়া । রোম্বা ভ্যাকুয়াম ক্লিনার এর বড় উদাহরণ যে সেন্সরের সাহায্যে একা একাই তার কাজ করতে পারে ।
৪। Tele operated Robots
Tele operated Robots এই রোবটগুলো মানুষ দ্বারা নিয়ন্ত্রিত । এই রোবটগুলো আবহাওয়া, ভু প্রকৃতির বিভিন্ন কাজে ব্যবহার করা হয় । উদাহরণ স্বরূপ বলা যায় সমুদ্রতলে সাবমেরিন তার বা তেলের পাইপ লিক হলে এই রোবট ব্যবহার করা হয় ।
৫। Augmenting Robots
Augmenting Robots এই রোবটগুলি মানুষের অক্ষমতা দূর করতে বা মানুষের ক্ষমতা বৃদ্ধি করতে ব্যবহার করা হয় । যেমন কৃত্রিম হার্ট প্রতিস্থাপন করা , কৃত্রিম পা লাগানো বা মানুষের সক্ষমতার চেয়ে অধিক ভারী বস্তু উত্তোলনে ।

রোবটের ব্যবহার

বর্তমান বিশ্বের অনেক কাজে রোবট ব্যবহার হয়ে আসছে । এর ব্যবহারের কারণে মানুষের অনেক কাজ সহজতর হয়েছে । যেসব কাজে মানুষের জীবনের ঝুঁকি ছিল সেই সব কাজও এই রোবট দ্বারা খুব সহজেই করা সম্ভব হয়েছে । আসুন আমরা এবার এই রোবটের কিছু ব্যবহার সম্পর্কে জানার চেষ্টা করি ।
১। উৎপাদন ব্যবস্থাপনা
রোবট ব্যবহারের দিক থেকে উৎপাদন শিল্প সবচেয়ে প্রাচীন এবং সর্বাধিক ব্যবহারকারী । এই রোবটগুলি কো বট গুলি মানুষের পাশাপাশি কাজ করে আসছে । গাড়ি এবং শিল্প সরঞ্জাম ঠিকমত পরীক্ষা করা ও সংযোগ করার কাজে এদের জুরি নেই । বর্তমানে বিশ্বে প্রায় ৩ কোটি শিল্প প্রতিষ্ঠানে রোবট ব্যবহৃত হয় ।
২। সরবরাহ কাজে
সরবরাহ কাজে বর্তমানে রোবটের ব্যবহার অনেক গুন বেড়ে গেছে । জাহাজ থেকে মালামাল উঠানো নামানো , পণ্যের মান নিয়ন্ত্রণসহ আরও অনেক কাজে রোবট ব্যবহার হয়ে আসছে । এখন যেহেতু পণ্যের প্যাকেজিং এর কাজ অনেক তারাতারি করতে হয় তাই মানুষের পক্ষে এত তারাতারি করা সম্ভব হয় না তাই সেই সব জায়গায় রোবটের ব্যবহার বেড়ে গেছে ।
এমন অনেক রোবট আছে যেগুলো প্যাকেজিং থেকে শুরু করে পন্য রেকে রাখা, গাড়িতে উঠানো নামানো, সর্বশেষে সেগুলোকে গ্রাহকের দরজায় পৌঁছানোর কাজ ও করে ।
৩। বাড়িঘরের কাজে সহায়তা করা
অনেক কাল আগের মত এটি আর এখন কল্প কাহিনী নয় বাস্তবে ছোট ছোট রোবট গুলি এখন আমাদের দৈনন্দিন অনেক কাজ করে দিচ্ছে । ঘরবাড়ি পাহারা দেয়া , সময় মনে করে দেয়া, বাচ্ছাদের আনন্দ দেয়া , ঘরদোর পরিস্কার করা সহ আরও অনেক কাজ করছে । এছাড়া একা একা ঘাস কাটার কাজ ও করছে ।
৪। যানবাহনে রোবট
অনেক কল্পকাহানিতে আমরা দেখে থাকি যে একটি গাড়ি একা একা চলছে তার কোন চালকের প্রয়োজন হচ্ছে । এই দিন আর বেশি দূরে নয় যেদিন বাস্তবে একটি গাড়ি একা একা চলবে কোন ড্রাইভারের প্রয়োজন হবে না । যাত্রীর ভাবভঙ্গি দেখে তার আরামের ব্যবস্থাও করবে । ট্র্যাফিক সিগন্যাল দেখে সিদ্ধান্ত নিতে পারবে । অনেক আইটি কোম্পানি ও গাড়ি নির্মাতা প্রতিষ্ঠান ইতিমধ্যে এর কাজ শুরু করে দিয়েছে । যেমনঃ টেঁসলা, ফোড়ড, বিএমডাব্লিউ, উবার, লিফট এর মত প্রতিষ্ঠান খুব তারাতারি এই ধরণের যান বাজারে আনবে ।
৫। স্বাস্থ্যখাতে রোবট
স্বাস্থ্যখাতে বিশাল অগ্রগতি অর্জন করেছে এই রোবট । স্বাস্থ্যখাতের প্রায় প্রতিটি ক্ষেত্রে এই যান্ত্রিক রোবট গুলির ব্যবহার বেড়েছে । এই রোবট ব্যবহার করে সার্জারি থেকে শুরু করে বিভিন্ন ধরণের থেরাপি, পক্ষাঘাতগ্রস্থ মানুষের সহয়তাও করা সম্ভব হয়েছে । উদাহরণ স্বরূপ বলা যায় টয়োটার স্বাস্থ্য সহকারী রোবট । এই রোবট মানুষজনকে চলার ক্ষমতা ফিরে পেতে সাহায্য করে । আবার টিইউজি নামের একটি রোবট যা হাসপাতালে খুঁটিনাটি অনেক কাজই করে যেমন ঔষধ কেনা থেকে শুরু করে হাসপাতালের রুমের ঠিকানা মত টা পৌঁছে দেয়ার মত কাজ ।
৬। ট্র্যাফিক কন্ট্রোল
আধুনিক অনেক দেশে সেন্সর বেসড রোবট দিয়ে সেখানকার ট্র্যাফিক নিয়ন্ত্রণ করা হচ্ছে । এই রোবটগুলি সেন্সর থেকে তথ্য সংগ্রহ করে তার প্রসেস করে ট্র্যাফিক আপডেড দেয় ।

রোবটের ভবিষ্যৎ

বিজ্ঞানের কল্পকাহিনীকে বাস্তবে আসতে হয়তো আর খুব বেশিদিন এই পৃথিবীর মানুষকে অপেক্ষা করতে হবে না । অদূর ভবিষ্যতে মানুষের অনেকটা জায়গা এই রোবট দখল করে নিবে । একদিকে যেমন মানুষের অনেক কাজ সহজ হয়ে যাবে তেমনি অনেক মানুষ তাদের কাজের পরিধি হারাবে । রোবট ব্যবহার করে যেমন অনেক জটিল কাজকে সহজ করা সম্ভব হয়েছে তেমনি এর বিপরীত ব্যবহার মানুষের জন্য তথা এই বিশ্বের জন্য অনেক ক্ষতির কারন হতে পারে । তাই অদূর ভবিষ্যতে এর ব্যবহার কিরূপ হবে কে কোন কাজে ব্যবহার করবে তার উপর নির্ভর করবে এই রোবট মানব জীবনের জন্য আশীর্বাদ না অভিশাপ ।
learnictbd
More About Robot
More About Robot

Add a Comment

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।